Sunday, April 10, 2011

History of The PEN All India Center, West Bengal: A glimpse

History of The PEN All India Center, West Bengal: A glimpse

The history of the The PEN All India Center of International PEN, a world organisation of poets, playwrights, editors, essayists and novelists, is truly rare since it is non available in a book form. The Indian PEN centre has it’s office in Mumbai. Perhaps, the history of that Indian centre may somehow be framed by collecting the old documents. But the PEN’s west Bengal branch has no such written documents; the reason behind this is the fact that this branch had never its office in the true sense of the term till now; though the branch came into being in 1934 and a long period of 77 years have since elapsed. Another reason was Mumbai had maintained an office, so, the West Bengal branch had never felt this so strong to maintain an office.It thought Mumbai maintains all. The works were carried out by the subscription of volunteers or voluntary members. The secretaries have, so far worked from their respective residences. It has led to discontinuity in works and records, since whenever a secretary has either retired or died the necessary records and documents could not be maintained and preserved at a place.

The West Bengal branch came into existence in 1933 almost at the same time when the Indian centre of the Pen international was opened in Mumbai. There are no distinct documents as to who all actually ran the branch for long 77 years . Deb Kumar basu was the pivotal figure of the branch since 1992. Right from his tenure or perhaps from even before its connections with Indian center in Mumbai got severed.( somehow unintentionally, here, a point to be remembered that Mumbai is the western side, and Kolkata is eastern side of Indian map. A long distance in between the two states, about 2000 km. all communication used to make through postal service, a snail pace, somehow it was disconnected). Under such a condition we are venturing to frame the history of the PEN West Bengal Branch. Unintentional omissions may therefore occur. We request our readers/members to bear and also to let us know any genuine information for updating the history. There has been no mention of the PEN West Bengal branch in any literary works of anybody in our memory, so we are to rely on the literary works of Annadashankar Roy.

From the writing of Annadashankar Roy we come to know that immediately after opening the the Indian centre of PEN International in Mumbai, some renowned persons like Dr. Kalidas Nag, Manindrala Basu, Priyaranjan Sen had opened the West Bengal chapter of the Indian PEN centre, this chapter was termed as ‘Bengal Chapter’.

The International PEN for the first time had invited India in 1930 for deputing delegates.this we can know from the archive of American Center. This was the time when B. P. Wadia, Sophia Wadia were regularly visiting Europe for the sake of theosophy society or United Lodge of Theosophy.

In 1930 B. P. Wadia published a journal "The Aryan Path" for theosophy. In 1928 he married Sophia Camacho (Born September 13th 1901, was educated in paris and columbia university, The U S A, is an international lecturer and writer.)

Between January and the end of April 1929, Mr. Wadia lectured for the London ULT at the Victoria Hall, Bloomsbury, to packed audiences ( 2,300 +) The London Lodge was then housed in rented premises in a building a couple of blocks from Marble Arch. In March 1929, Mr. and Mrs. Wadia were in London, they also were visited by many students from the European continent. They, in turn, visited a number of the ULT Lodges there before beginning their trip to India.

Mr. Wadia was of the opinion that the future of Theosophy in its presentation to the world would be, in one way, through the work of the future writers and poets of the world. Accordingly he and Sophia Wadia had earlier became members of the International P.E.N. Club.

In England, they came to know the writers of PEN. Their aim was to spread the message of theosophy among writers of PEN.

They started a center with the permission of PEN in 1933 in Mumbai. Rabindranath Tagore was on then 72 years old. The transport and communication system of India was at that time is easily imaginable. Barring some rich and influential people, it was very difficult to have connection in the national and international sphere. Thus writes Annada Shankar Roy:

“Madam Sophia Wadia with the permission of the International PEN set all India PEN centre. Rabindranath Tagore was the President. Dr. Kalidas Nag, Manindralal Basu, Priya Ranjan Sen obtained permission of opening a branch in Kolkata.”

“ As per the international convention the meetings of PEN used to be held in some hotel and restaurant, and lunch and dinning was a part and parcel of such meetings, Extra expenditure was borne by the members were present. During that period it was rupees two or and half or Rupees three would cost per head. The responsibility of collection of contribution or ordering meals was borne by Mani da. The progress and prosperity of the PEN Bengal; chapter was certain when such an enthusiasts secretary was in the helm. So far work was concerned ,the chapter was center and center was chapter, because members is Bengal was so active and more in number. But right to depute a delegate to the international congress of the PEN rested only with the Indian centre in Mumbai. And not with the chapter.”

Excerpts from ‘Dekha shuna’ by Annada Shankar Roy, published by M/s Mitra and Ghosh Pvt. Ltd. 10, Shyama Charan Dey Street. Kolkata 73.

Manindralal Basu was a barrister and a successful writer as well as an influential man. During those days only dignitaries of the society were the members of the PEN. We learn further from the writings of Annada Shankar Roy that the presidents of Indian P E N center were in the order of Rabindranath Tagore, Sorojini Naidu, Dr.sarvapalli Radhakrishnan, Masti Venkatesh Ayenger and Umashankar Joshi, after that Annadashankar Roy was promotioned from vice president and he remained president till his death.

In 1936, The International PEN congress was held in Buenos Aires, Argentina. Dr. Kalidas Nag from the Bengal chapter started as deligate to join the congress. Since the power of deputing a delegate rested only with the main center , Mumbai ( by then Bombay) Madam Wadia could not acknowledge the decision of the Bengal chapter for deputing Dr. Kalidas Nag as a delegate. This ultimately causes a bitterness between centre and chapter, A meeting in the matter was held in Grand hotel, Kolkata, in the presence of Sarojini Naidu. The Bengal chapter was dissolved then in the charge of breach of discipline. But it was continued with the members who were the members of Mumbai center in low profile.

After Independence of India, Madam Wadia wrote to Annada shankar Roy. The regular members of the Bengal chapter might at their will assemble and meet together informally. Such meetings were than arranged in the ‘Friends’ center’ of Wood Street. Leela Mazumdar was as secretary for sometime who was succeeded by Naren Deb and Radharani Debi. It was their endeavour that small groups of Bengal chapter turned into West Bengal Branch of the PEN all India centre. After this, Sudhir sarkar, who himself was a writer, editor of Mouchak’ a juvenile monthly journal and a publisher took the charge of running West Bengal branch . He was a member of the PEN as well as a publisher too. After sudhir sarkar it was perhaps Santosh Adhikari to have succeeded. Since 1992 Debkumar Basu was the secretary till his death in 2007.

Dr. Jagannath Ghosh then took over in 2007. But unfortunately, he also died after a couple of years. At present, since 2009, Ranjan Gupta is secretary of the west Bengal branch of the PEN.

The pen west Bengal has the honour of having Rabindranath Tagore as its president. Prominent Judge and writer Annada Shankar Roy was the president for a long years and at present , since the death of Annada Shankar Roy the chair is ornamented by Prominent writer and poet Sunil Gangopadhyay. He is also the president of Sahitya Academy (National Academy of Letters ,) Govt of India.

In the beginning years, vice presidents were Dr. Kalidas Nag, Ashapurna Debi, Nabyendu Ghosh, andSat present Surajit Das Gupta holds the position of Vice chairman of west Bengal.

The present executive body of the PEN West Bengal is comprised of the following

Chairman – Sunil Gangopadhyay

Vice chairnman— Surojit Das Gupta

Secretary -- Ranjan Gupta.

Jt.secretary-- Shyamal Mukhopadhyay

Communication executive – Albert Ashok


Members :

Ananda Ghosh Hazra

Nishith Roy Choudhury

Jayati Gangopadhyay

Kamal Mukhopadhyay

Deepika Bhattacharya

Roma Sen

Chandra Mazumdar

Basant Rungta

Nathmal Kedia

-------------------------o--------------------------

For People in Bengal can read it in Bengali language

আন্তর্জাতিক পি, ই, এনের ভারতবর্ষ কেন্দ্রের ইতিহাস খুবই দুর্লভ, পূস্তকাকারে পাওয়া যায়না। মুম্বাইতে এর অফিস আছে, নথিপত্র ঘেঁটে তার ইতিহাস সন্ধান পাওয়া যেতে পারে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের শাখার কোন ইতিহাস নেই। কারন, ভারতীয় পি ই এন কেন্দ্রের শাখা পশ্চিমবঙ্গের কোন অফিস আজ অবধি নেই।১৯৩৪ সাল থেকে ২০১১,৭৭ বছর পেরিয়ে গেল। শাখার সম্পাদকগন নিজেদের দায়িত্বে অফিস ও কাজ নিজের বাড়িতেই করে থাকেন। ফলতঃ একজন সম্পাদকের প্রস্থানের সাথে সাথে ইতিহাস ও কাজের ধারাবাহিকতার বিঘ্ন ঘটে। ইতিহাস ও নথিপত্র সংরক্ষণ করা যায়না।

পশ্চিমবংগ শাখা শুরু হয় ভারতীয় কেন্দ্র মুম্বাইয়ে শুরু হওয়ার প্রায় সাথেসাথেই, ১৯৩৩ সালে। সুতরাং গত ৭৭ বসরের কারা কারা কতদিন ধরে এই পি ই এনের শাখা অফিস চালিয়েছেন তার কোন প্রামাণ্য নথি নেই। দেব কুমার বসু বাংলা পি ই এনের প্রান পুরুষ ছিলেন, তিনি পি ই এন চালান ১৯৯২ সাল থেকে, তার সময়ের থেকে, বোধ করি তারও আগে থেকে মুম্বাইয়ের কেন্দ্রের সাথে বাংলা শাখা সম্পূর্ণ সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন। এরকম একটা অবস্থায় আমরা পশ্চিমবঙ্গ পি ই এন এর ইতিহাস রচনা করতে বসেছি, ক্রটি বিচ্যুতি থাকা স্বাভাবিক। পাঠক গনের কাছে আমাদের আশা তারা যদি কোন সঠিকতথ্য জেনে থাকেন তারা দয়া করে আমাদের জানিয়ে দেবেন। বর্তমানে আমরা তেমন কোন প্রকাশিত পুস্তক পাইনি যা থেকে আমরা এ ব্যাপারে উসাহিত হতে পারি। শ্রদ্ধেয় সাহিত্যিক অন্নদাশঙ্কর রায়ের লেখা ছাড়া বাংলা সাহিত্যে পি ই এন এর কথা বিশেষ দেখা যায়না। অন্নদাশংকরের লেখা থেকে আমরা জানতে পারি, ড: কালিদাস নাগ, মণীন্দ্রলাল বসু, প্রিয়রঞ্জন সেন প্রমুখগন মুম্বাই ভারতীয় কেন্দ্র স্থাপিত হওয়ার পর পশ্চিমবঙ্গে শাখা পি ই এন প্রচলন করেন। প্রতিষ্ঠাতা সবাই বাঙালি হওয়ার দরুন এটাকে ‘বেঙ্গল চাপ্টার’ আখ্যা দেওয়া হয়।

আন্তর্জাতিক পি ই এন ১৯৩০ সালে ভারত থেকে প্রতিনিধি পাঠানোর আমন্ত্রন পাঠায়। তখন অধ্যাত্মবাদে বিশ্বাসী বি পি ওয়াদিয়া ও সোফিয়া ওয়াদিয়া তাদের নিজেদের থিওজফি সোসাইটির প্রচারের স্বার্থে ইঊরোপ যাতায়াত করতেন। তারা তাদের অধ্যাত্মবাদ প্রচারের স্বার্থে ইংল্যান্ডে পি ই এন এর লেখকদের সাথে পরিচিত হন এবং সদস্যপদ গ্রহন করেন। ভারতে তারা অধুনা মুম্বাইতে ১৯৩৩ সালে পি ই এন এর কেন্দ্র ও অফিস চালু করেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বয়স তখন ৭২ বছর (১৮৬১-১৯৪১)। ভারত বর্ষের যোগাযোগ ব্যবস্থা তখন কেমন ছিল কল্পনা করুন। একমাত্র বিত্তশালী ও প্রভাবশালী ব্যক্তি বাদে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক স্তরে সম্পর্ক রাখা অসম্ভব ছিল।

অন্নদাশংকর লিখেছেন, ‘মাদাম সোফিয়া ওয়াদিয়া আন্তর্জাতিক পি ই এন এর অনুমতি নিয়ে বোম্বাইতে অল ইন্ডিয়া পি ই এন কেন্দ্র স্থাপন করেন। তার সভাপতি হন রবীন্দ্রনাথ।কলকাতায় তার একটি চ্যাপ্টার খোলার অনুমতি পান ডক্টর কালিদাস নাগ, মণীন্দ্রলাল বসু, প্রিয় রঞ্জন সেন প্রমুখ।’

“আন্তর্জাতিক প্রথা অনুযায়ী পি ই এনের বৈঠক বসত কোন হোটেলে বা রেস্টুরেন্টে, লাঞ্চ কিংবা ডিনার ছিল তার অঙ্গ। বাড়তি চাঁদা উপস্থিত সদস্যরা বহন করতেন। তখনকার দিনে মাথাপিছু আড়াইটাকা বা তিনটাকা লাগত। চাঁদা আদায় বা খানা অর্ডার ইত্যাদি ভার নিতেন মণিদা।এমন উসাহী সেক্রেটারি থাকতে পি ই এনের কলকাতার চ্যাপ্টারের শ্রীবৃদ্ধি অনিবার্য। কাজকর্মের বিচারে চ্যাপ্টারই কেন্দ্র, কেন্দ্রই চ্যাপ্টার। আন্তর্জাতিক কংগ্রেসে ডেলিগেট পাঠানোর ক্ষমতা ছিল কেন্দ্রের, চ্যাপ্টারের নয়।”

( উল্লেখ্য অন্নদাশংকর রায়ের লেখা ‘দেখাশোনা’ – প্রকাশকঃ মিত্র ও ঘোষ পাবলিশার্স প্রাঃ লিঃ ১০, শ্যামাচরণ দে স্ট্রিট, কলকাতা- ৭৩)

মণীন্দ্রলাল বসু ছিলেন ব্যারিস্টার ও একজন সুসাহিত্যিক প্রভাবশালী ব্যক্তি।তখনকারদিনে পি ই এন এ সামাজিক উচ্চ মর্য্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তিরাই ছিলেন।

অন্নদা শংকরের লেখা থেকে আমরা আরো জানতে পারি ভারতে পি ই এন এর সভাপতি ক্রমানুযায়ী প্রথম রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, সরোজিনী নাইডু, পরে ডক্টর সর্বোপল্লী রাধাকৃষ্ণন, মস্তি বেংকটেশ আয়েঙ্গার, উমাশংকর যোশী। এরপর সহ সভাপতির পদ থেকে উন্নীত হয়ে অন্নদাশংকর রায় নিজেও সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন আমৃত্যুকাল।

১৯৩৬ সালে ডেলিগেট আর্জেন্টিনার বুয়েন্স এয়ার্সে আন্তর্জাতিক পি ই এন এর কংগ্রেস বসে, তাতে ডেলিগেট হিসাবে ডক্টর কালিদাস নাগ ও যান, ডেলিগেট পাঠানোর ক্ষমতা কেন্দ্রের ও কর্ণধার সোফিয়া ওয়াদিয়ার।

ডক্টর কালিদাস চ্যাপ্টারের হয়ে ডেলিগেট হিসাবে রওনা হন বুয়েন্স এয়ার্সে। জাহাজে শ্রীমতি সোফিয়া ওয়াদিয়া আবিষ্কার করেন তার সহযাত্রী বেঙ্গলি চ্যাপ্টারের ডেলিগেট ডক্টর কালিদাস নাগ। এটা শ্রীমতি ওয়াদিয়া মেনে নিতে পারলেননা। চ্যাপ্টারের ডেলিগেট পাঠানোর ক্ষমতা নেই।

এই নিয়ে তিক্ততা হল শুরু কেন্দ্র বনাম চ্যাপ্টার। সরোজিনি নাইডু র উপস্থিতিতে কলকাতায় গ্র্যান্ডহোটেলে বিচার বসে।শৃংখলা ভংগের দায়ে চ্যাপ্টার খারিজ হয়ে যায়।

স্বাধীনতার পর, আবার শ্রীমতি ওয়াদিয়া অন্নদাশংকরকে লেখেন যাদের সভ্যপদ বজায় আছে তারা যেন আবার মিলিত হন ঘরোয়াভাবে বা ছোট দল হিসাবে তখন উডস্ত্রিটের ফ্রেন্ডস সেন্টারে পি ই এন এর সভা বসত। সম্পাদক হিসাবে লীলা মজুমদার কিছুদিন চালান, তারপর নরেন দেব ও রাধারানী দেবী। তাদের উদ্যোগে এই ছোট দল ‘পশ্চিমবংগ শাখা’ য় পরিণত হয়। এরপর দায়িত্বভার নেন লেখক, মৌচাক কিশোর পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক সূধীর সরকার। তিনি একজন সপ্রকাশক ও সজ্জন ব্যক্তি পি ই এন এর সদস্য ছিলেন।সুধীর সরকারের পর সম্ভবতঃ সন্তোষ অধিকারী। ১৯৯২ সাল থেকে আমৃত্যুকাল সম্পাদক ছিলেন দেবকুমার বসু।২০০৭ সালে দেবকুমার বসুর মৃত্যুর পর ডক্টর জগন্নাথ বসু হন। তিনি কিছুকাল সম্পাদক থাকার পর মারা যান। বর্তমানে কলকাতাস্ত পি ই এন এর সম্পাদক ২০০৯ সাল থেকে রঞ্জন গুপ্ত।

শুরুর দিক থেকে সহসভাপতি ছিলেন, ডক্টর কালিদাস নাগ, আশাপূর্ণা দেবী, নব্যেন্দু ঘোষ ও বর্তমানে সুরজি দাসগুপ্ত।



1 comment:

Subhorup Dasgupta said...

This is amazing. Thank you